1. multicare.net@gmail.com : সময়ের পথ :
শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ১২:৫৯ পূর্বাহ্ন

সাংবাদিক রুবেল হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতারের দাবিতে এসপি অফিস ঘেরাও ও স্মারকলিপি প্রদান

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১৪ জুলাই, ২০২২
  • ১৯ বার পড়া হয়েছে

সাংবাদিক রুবেল হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতারের দাবিতে এসপি অফিস ঘেরাও ও স্মারকলিপি প্রদান

কে এম শাহীন রেজা, কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি।।

কুষ্টিয়ায় সাংবাদিক হাসিবুর রহমান রুবেল হত্যার প্রতিবাদ ও হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও বিচার দাবিতে কুষ্টিয়া পুলিশ সুপার কার্যালয় ঘেরাওসহ পুলিশ মহাপরিদর্শক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচী পালন করেছে জেলায় কর্মরত সর্বস্তরের সাংবাদিকবৃন্দের ব্যানারে।

১৪ জুলাই বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টার সময় কুষ্টিয়া পুলিশ সুপার কার্যালয়ের প্রধান ফটকে এডিটরস ফোরামের সভাপতি মজিবুল শেখের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ঘেরাও কর্মসূচীতে সংহতি জানিয়ে অংশ গ্রহন করেন জেলায় কর্মরত সর্বস্থরের সাংবাদিকরা।

নেতৃবৃন্দ সাংবাদিক রুবেল হত্যার রহস্য উন্মোচন করে হত্যাকান্ডে যারাই জড়িত থাক তাদের আনতিবিলম্বে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। সাংবাদিক হাসিবুর রহমান রুবেলকে শহরের প্রান কেন্দ্র হতে তুলে নিয়ে পরিকল্পিত ভাবে পেশাদার খুনির দ্বারা নৃসংশ হত্যার প্রতিবাদ এবং হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও বিচার দাবিতে কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব ও কুষ্টিয়া এডিটর ফোরামের পূর্বঘোষিত ৭ দফা কর্মসূচির ধারাবাহিকায় পুলিশ সুপার কার্যালয় ঘেরাও করে সাংবাদিকরা। এসময় পুলিশ সুপারের প্রতিনিধিত্ব করে ঘেরাও সমাবেশস্থলে এসে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কুষ্টিয়া মোস্তাফিজুর রহমান সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের হাত থেকে স্মারকলিপি গ্রহন করেন এবং দ্রুততম সময়ের মধ্যে রুবেল হত্যার ক্লু উদ্ঘাটনসহ জড়িতদের গ্রেফতার বিষয়ে অঙ্গীকার করেন।

কুষ্টিয়া টেলিভিশন জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশন সভাপতি দৈনিক দেশরূপান্তর ও বাংলভিশনের জেলা প্রতিনিধি হাসান আলীর সঞ্চালনায় বিক্ষোভ ও ঘেরাও কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব(কেপিসি) ও কুষ্টিয়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রাশেদুল ইসলাম বিপ্লব, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি সময়ের কাগজের সম্পাদক নুরুন্নবী বাবু, চ্যানেল ২৪র স্টাফ রিপোর্টার শরীফ বিশ্বাস, প্রেসক্লাবের সহসভাপতি সাপ্তাহিক রবি বার্তার সম্পাদক গোলাম মওলা, প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ লিটন উজ জামান, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের নির্বাহী সদস্য ও মাইটিভির জেলা প্রতিনিধি আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ।

এর আগে গত ৭জুলাই কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সম্মুখে অবস্থান কর্মসূচী পালন হতে পূর্বঘোষিত নানা কর্মসূচী পালন করে আসছে সাংবাদিকরা। সাংবাদিক রুবেল হত্যার বিচারের দাবিতে কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব ও কুষ্টিয়া এডিটর ফোরামের জরুরী সভায় ৭ দফা কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। সাংবাদিক হাসিবুর রহমান রুবেলের খুনিরা গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত কুষ্টিয়ার স্থানীয় দৈনিক ও সাপ্তাহিক পত্রিকা বন্ধ ঘোষণা, শুক্রবার (৮ জুলাই) লাশ দাফন শেষে শহরে বিক্ষোভ মিছিল, শনিবার (৯ জুলাই) কুষ্টিয়া মডেল থানার সামনে কলম বিরতি, মঙ্গলবার (১২ জুলাই) কুষ্টিয মডেল থানার সামনে প্রতিবাদ সমাবেশ, বুধবার (১৩ জুলাই) জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি প্রদান, বুধবার (১৩ জুলাই) জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘেরাও, বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) কুষ্টিয়া পুলিশ সুপারের কার্যালায় ঘেরাও কর্মসূচী ঘোষণা করে।

উল্লেখ্য গত ৩ জুলাই রবিবার রাত ৯টার দিকে সাংবাদিক রুবেল কুষ্টিয়া শহরের বাবর আলী গেট সংলগ্ন নিজ পত্রিকা অফিসে অবস্থানকালে মোবাইলে একটি কল পেয়ে তার অফিস থেকে বের হয়ে এন এস রোডের সিঙ্গার মোড়ের দিকে যান। এরপর থেকে তার ব্যবহৃত তিনটি মোবাইল ফোন নম্বরই বন্ধ পাওয়া যাচ্ছিলো। এ ব্যাপারে সাংবাদিক রুবেলের ছোট ভাই মাহাবুব রহমান সোমবার (৩ জুলাই) রাতে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। যার জিডি নম্বর- ২০৩। এর পর গত বৃহস্পতিবার (৭ জুলাই) দুপুরে কুষ্টিয়ার কুমারখালী নির্মাণাধীন কুমারখালী যদুবয়রা সংযোগ সেতুর শহীদ গোলাম কিবরিয়া সেতুর নিচ থেকে কুষ্টিয়া জেলা রিপোর্টাস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়ার স্থানীয় পত্রিকা দৈনিক কুষ্টিয়ার খবরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক এবং জাতীয় দৈনিক আমাদের নতুন সময়ের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি হাসিবুর রহমান রুবেলের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করে পাবনা নৌ-পুলিশ।

এ ঘটনায় শুক্রবার (৮ জুলাই) নিহত হাসিবুর রহমান রুবেলের চাচা মিজানুর রহমান বাদি হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে কুমারখালী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নম্বর-১২। কিন্তু অদ্যবধি রুবেল হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতার বিষয়ে পুলিশে নির্লিপ্ত ভুমিকার অভিযোগ তুলেছেন সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।

সাংবাদিক হাসিবুর রহমান রুবেল কুষ্টিয়া শহরের হাউজিং এ ব্লকের হাবিবুর রহমানে ছেলে। রুবেল সাংবাদিকতার পাশাপাশি কুষ্টিয়া মিউনিসিপ্যালিটি মার্কেটে আল মদিনা ভান্ডার নামে ছোট ভাইয়ের সাথে কাঁচামালের আড়ত (পাইকারি) ব্যবসা করার পাশাপাশি এক পাটনারের সাথে বিভিন্ন সরকারি অফিসের সাথে ঠিকাদারি করতেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

আরো লেখাসমূহ

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় ইয়োলো হোস্ট