1. multicare.net@gmail.com : সময়ের পথ :
শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৫১ অপরাহ্ন

আলাউদ্দিন আহমেদ শিক্ষাপল্লী পার্কে উদ্বোধন হলো রাউনডিশ রেস্টুরেন্ট

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: শনিবার, ৯ জুলাই, ২০২২
  • ২৭ বার পড়া হয়েছে

আলাউদ্দিন আহমেদ শিক্ষাপল্লী পার্কে উদ্বোধন হলো রাউনডিশ রেস্টুরেন্ট
কে এম শাহীন রেজা, কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি।।

কুষ্টিয়া কুমারখালী উপজেলার নন্দলালপুর ইউনিয়নের আলাউদ্দিন নগরে আলাউদ্দিন আহমেদ শিক্ষা পল্লী পার্কে রাউনডিস চাইনিজ রেস্টুরেন্ট (গোলাকৃতি ভোজনালয়) এর উদ্বোধন হয়েছে। গত ৮ জুলাই শুক্রবার বাদ আসর শিক্ষাপল্লী পার্কের মধ্যে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের মধ্য উক্ত রেস্টুরেন্টের উদ্বোধন করেন উক্ত প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও প্রধান অতিথি দানবীর আলাউদ্দিন আহমেদ।

উক্ত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিলাইদহ ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান গাজী তারেক, নন্দলালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমান খোকন, আলাউদ্দিন আহমেদ ফাউন্ডেশনের সভাপতি রেজাউল করিম রেজা এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পিজা স্পেশালিস্ট ঢাকা মিরপুরের শেখ তারেক জামান। তারেক জামানের ইতালিতে একটি চাইনিজ রেস্টুরেন্ট আছে।

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে আলাউদ্দিন আহমেদ শিক্ষা পল্লী পার্কের মধ্যে গোলাকৃতি ভোজনালয় রাউনডিস চাইনিজ রেস্টুরেন্টের উদ্বোধন কালে আলাউদ্দিন আহমেদ বলেন, এখানে বিশেষ অভিজ্ঞতা সম্পন্ন সেফের দ্বারা অতি রুচিশীল টাটকা খাবার যেমন চাইনিজ থাই ইন্ডিয়ান ও বাংলা খাবার অর্ডার মতো সরবরাহ ও পরিবেশন করা হবে। বিবাহ, বৌভাত, অফিসিয়াল যেকোনো ধরনের অনুষ্ঠানাদির বিয়ের ব্যবস্থাও রয়েছে। উক্ত চাইনিজ রেস্টুরেন্টের মূল আকর্ষণ রয়েছে সেটি হল রাউনডিস স্পেশাল পিজা। তিনি আরো বলেন, মুক্ত আলো বাতাস ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন মনমুগ্ধকর পরিবেশে পিংজা সুপ, চিকেন ফ্রাই, গ্রিল, কাবাব সহ টাটকা মাছ, ফিস ফ্রাই। এছাড়াও শরবত, মাঠা, ঘোল, টক দই, মিষ্টি দই ও যে কোনো পছন্দনীয় খাবার পাওয়া যাবে। এর আগে পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে নতুন দুটি রাইডারের উদ্বোধন করেন।

উল্লেখ্য ২০১৫ সালে কুমারখালীর কৃতি সন্তান, হেলথকেয়ার ফার্মাসিটিক্যাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান, আলাউদ্দিন আহমেদ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান, শিক্ষানুরাগী, আলাউদ্দিন নগরের রূপকার ও শিক্ষাপল্লীর জনক দানবীর ড. আলাউদ্দিন আহমেদ এই পার্কটি নির্মাণ কাজ শুরু করেন। এখনও পার্কটির নির্মাণ কাজ চলছে। পার্কটি দর্শনার্থীদের জন্য বেশ কয়েক বছর আগেই খুলে দেওয়া হয়েছে।

শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে বৃদ্ধদের জন্য পার্কটি ইতিমধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। সরেজমিনে দেখা গেছে, কুষ্টিয়া ও কুষ্টিয়ার বাইরে থেকে দর্শনার্থীরা বেড়াতে আসছে শিক্ষা পল্লী পার্কে। পার্কটির মধ্যে ঢুকতেই চোখে পড়বে জাতীয় মানের একটি সৌন্দর্যপূর্ণ গেট। তার আগে চোখে পড়বে গেটের বাইরে বাউন্ডারি প্রাচীরের সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের কিছু স্মৃতি। ভেতরে ঢুকে আরো চোখে পড়বে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন মনীষীদের বাণী।

বাউন্ডারি ঘেরা বিশাল বড় এরিয়া জুড়ে চোখে পড়বে, বাম্পার ক্যার, টুইস্ট রাইটার, সুইম চেয়ার রাইটার, পাইরেট শিপ, বুলেট ট্রেন, দৃষ্টিনন্দন পুকুরের মাঝে বিভিন্ন প্রজাতির হরেক রঙের মাছ, নৌকা, স্প্রীট বোর্ড, সাবলীল পরিবেশে পিকনিক স্পট সহ বিভিন্ন রকমের ড্রাইভ। টুরিস্টদের থাকার জন্য তৈরি করা হয়েছে কটেজ। অন্যদিকে পার্কটির দক্ষিণ সংলগ্ন মনোমুগ্ধকর চতুর্থ তলা ভবন নির্মাণের কাজ চলছে। ভবনটি পরিপূর্ণতা লাভ করলে পার্টি আরো দর্শনীয় হয়ে উঠবে বলে ধারণা করছে পর্যটকরা। তবে শিক্ষণীয় পার্কটির পরিপূর্ণতা ফিরে আসলে কুষ্টিয়া জেলা নয় বাংলাদেশের মধ্যে একটি অন্যতম পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

আরো লেখাসমূহ

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় ইয়োলো হোস্ট