1. multicare.net@gmail.com : সময়ের পথ :
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০৭:৫০ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
নড়াইলে কোরবানির জন্য প্রস্তুত ৬৪ হাজার ৭৪৮টি পশু নড়াইলে অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসকে জুতার মালা পরানোর ঘটনার প্রতিবাদে বিশাল মানববন্ধন থানায় অভিযোগ দায়ের- নড়াগাতীতে কিশোরকে মারপিটের অভিযোগে মানববন্ধন! ঈদ উপলক্ষে আলাউদ্দিন আহমেদ শিক্ষাপল্লী পার্কে সংযোজন হতে যাচ্ছে দুটি রাইডার নতুন এমপিও তালিকা ২০২২ ফাইতং উচ্চ বিদ্যালয় নাম প্রকাশিত নড়াইলে দলিল লেখক খোকন চন্দ্র রায়কে ছুুরিকাঘাত কুমিল্লায় আনসার ভিডিপি কার্যালয়ের বৃক্ষরোপণ অভিযান অনুষ্ঠিত হয়েছে নড়াইলের কালিয়ার কয়েকটি বাজারে সরকারি জমিতে গড়ে ওঠেছে অসংখ্য অবৈধ স্থাপনা। কুষ্টিয়া হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ ইদ্রিসের চাঁদাবাজির দৌরাত্ত্বে পরিবহন সেক্টর অসহায় র‍্যাবের অভিযানে সন্ত্রাসী সম্রাট ও মাদক ও অস্ত্রসহ গ্রেফতার

রক্তের হোলিখেলায় মেতে উঠেছে পাঞ্জের ও সবুজ হত্যা মামলার প্রধান আসামি দুলাল

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: সোমবার, ২৩ মে, ২০২২
  • ৩৫ বার পড়া হয়েছে

রক্তের হোলিখেলায় মেতে উঠেছে পাঞ্জের ও সবুজ হত্যা মামলার প্রধান আসামি দুলাল

কে এম শাহীন রেজা, কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি।

“আমি পাঞ্জেরকে গুলি করে মেরেছি। মহিবুল থাকলে আমি পাঞ্জেরকে মারতে পারতাম না। মহিবুল আমার নামে চলে। মহিবুলকে আমি তৈরি করেছি। আমি আরো দশটা মহিবুল তৈরি করব। চুয়াডাঙ্গার বাড়ি বিক্রয় করে ২০ লক্ষ টাকা প্রশাসনকে দিয়ে কলাবাড়ি এলাকার বাসিন্দা মহিবুলকে নির্মূল করে দিব। আমার হাত অনেক লম্বা, সেটা হলো আমার বাবার বন্ধু। তিনি অনেক বড় মাপের লোক, তার একটা ফোনে পুরা বাংলাদেশ কাপে। তার কথায় কুষ্টিয়া প্রশাসন উঠে আর বসে। আমার বাবার বন্ধুকে দিয়ে কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপারকে আজ ফোন করে মহিবুলের নামে কুষ্টিয়া মডেল থানায় দুইটা মামলা করেছি। মিরপুর থানাতেও যাচ্ছি তার নামে মামলা করতে সেই সাথে তার বিরুদ্ধে পাঁচটা জিডিও করা হবে”। উপরের এই কথাগুলো রবিবার বিকেলে প্রতিবেদককের মুঠোফোনে জানান, জাসদ নেতা পাঞ্জের হত্যা মামলার প্রধান আসামি ও ১৫ই আগস্ট কুষ্টিয়া জিলা স্কুলের সামনে সবুজ হত্যা মামলার আসামি মিরপুর উপজেলার আহম্মদপুর গ্রামের মৃত মকছেদ আলীর ছেলে দুলাল হোসেন। বর্তমানে এই অস্ত্রধারী ক্যাডার তার বাহিনী নিয়ে রক্তের হোলি খেলায় মেতে উঠেছে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী মহিবুল ও আলমের সাথে কথা হলে তারা বলেন, কুষ্টিয়ার অনন্যা নামের একটি মেয়ের বাড়ি চুয়াডাঙ্গায় বেদখল হয়েছিল। আমরা উক্ত বাড়িটি প্রায় ৫ লক্ষ টাকা খরচ করে তা উদ্ধার করেছি। উক্ত বাড়িটি সম্প্রতি কুষ্টিয়ার লিটন নামের এক ব্যক্তির কাছে ৮৬ লক্ষ টাকায় বিক্রয় চুক্তির স্থলে ২৫ লক্ষ টাকায় বায়না রেজিস্ট্রি করে দেন অনন্যা। অনন্যার সাথে তাদের যুক্তি ছিল যা বিক্রি হবে তার অর্ধেক টাকা দুলাল, মহিবুল, আলম সহ অন্যান্যরা পাবে।

উক্ত ২৫ লক্ষ টাকার মধ্যে মাত্র ৯ লক্ষ টাকা হাতে পেয়ে দুলাল তার সহযোগীদের ভাগ না দিয়ে একাই নিয়ে নেয়। যার ফলে মহিবুল ও আলমের সাথে মনোমালিন্য সৃষ্টি হয়। ইতিমধ্যে তার সঙ্গে গত ১৭ এপ্রিল চৌড়হাস এলাকায় দুলালের সাথে হাতাহাতিও হয়েছে। উক্ত ভাগের টাকা তার সহযোগীদের না দেওয়ার জন্য তিনি অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বাইরে থেকে সন্ত্রাসী ভাড়া করে এনে গত রবিবার রাতে আহমদপুর ও কলাবাড়ি এলাকায় মহড়া দিয়ে বেড়াচ্ছেন বলে তথ্য পাওয়া গেছে।

তার বিষয়ে মোহাম্মদপুর এলাকায় সরেজমিনে খোঁজ নিতে গেলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সুশীল সমাজের বেশ কয়েকজন ব্যক্তি তার বিষয়ে বলেন, দুলাল একজন অস্ত্রধারী ক্যাডার তার সঙ্গে সব সময় একটি অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র থাকে। সে জাল দলিল করে সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে কাটাখালি, কালিতলা, কানাপুকুর ও মুচিদেয়া জলাশয় গুলো একাই ভোগ করে যাচ্ছেন। সেই সাথে জাল দলিল দিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে মামলাও করে রেখেছেন।

কুষ্টিয়া গোয়েন্দা সংস্থার বরাত দিয়ে জানা যায়, দুলাল এর বিরুদ্ধে একাধিক হত্যা মামলা রয়েছে সে একজন তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিক জিডি ও অভিযোগ। কবুরহাট এলাকায় গাছ কেটে চুরি করে বিক্রয়ের অভিযোগ রয়েছে। কুষ্টিয়া কাটাইখানা মোড়ের এক কসাই গরুর মাংস বাবদ পাবে ২৫ হাজার টাকা। জনি নামের এক মাছ বিক্রেতা পাবে প্রায় ১৫ হাজার টাকা। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে রয়েছে অসংখ্য চেক জালিয়াতির মামলা। মিরপুর মশান এলাকার গরীবুল্লাহ তামাক বিক্রি বাবদ তার কাছে পাবে ৪,৮০,০০০ টাকা এ বিষয়ে মিরপুর থানায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা আছে। এছাড়াও গত উপজেলা নির্বাচনের দিন কলাবাড়ি এলাকায় পুলিশ ও র্যাবের সম্মুখে উক্ত এলাকার বাসিন্দা জয়নালকে প্রকাশ্যে গুলি করে, এ বিষয়ে তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা রয়েছে।

তবে তার বিরুদ্ধে বেশ কিছুদিন আগে এই বাড়ি বিক্রির অর্থের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় বৈঠকও হয়েছে। কুষ্টিয়া মডেল থানার পুলিশ কর্মকর্তারা ইতিমধ্যে তার বিষয়ে অবগত আছেন বলে তথ্য পাওয়া গেছে। সন্ত্রাসী দুলাল দাবি করেন তার বাবার বন্ধু মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একজন বড় কর্মকর্তা। তার নাম ভাঙিয়ে বিভিন্ন ব্যক্তিদের কাছ থেকে চাঁদাবাজি সহ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে বেড়াচ্ছে এ বিষয়ে কুষ্টিয়ার আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর হস্তক্ষেপ প্রয়োজন তাকে দমন করার জন্য। -প্রথম পর্ব

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

আরো লেখাসমূহ

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় ইয়োলো হোস্ট