1. multicare.net@gmail.com : সময়ের পথ :
মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯২ তম জন্মবার্ষিকী পালিত নড়াইলে ডিবি পুলিশের অভিযানে গাঁজাসহ গ্রেফতার ১ বান্দরবানের ৭ উপজেলার সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় রিজিয়ন কমান্ডার লামায় বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছার ৯২তম জন্মদিন উদযাপন কুষ্টিয়ায় শাহীন স্কুলের শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্র মারধর সহ নানান অনিয়মের অভিযোগ কুষ্টিয়ায় এরিয়া ম্যানেজার হত্যা মামলার পিতা-পুত্র আটক একজন সু অভিনেত্রীর “শুভ জন্মদিন” আজ। নাইক্ষ্যংছড়িতে ১১ বিজিবির অভিযানে ২০ রাউন্ড গুলি উদ্ধার প্রতারক মোস্তাক আহমদ ওরফে ময়নুল বালুচর থেকে গ্রেফতার নাজমা খান আরজু যশোরে চুনের ব্যবসার আড়ালে চলছে রমরমা ফেন্সিডেল ব্যাবসা, মুল হোতা আসিফ

নড়াইলে ছাগল চুরির অভিযোগে দু’ভাইকে গাছে বেঁধে নির্যাতন

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: সোমবার, ১৬ মে, ২০২২
  • ৩২ বার পড়া হয়েছে

নড়াইলে ছাগল চুরির অভিযোগে দু’ভাইকে গাছে বেঁধে নির্যাতন

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল থেকে :

নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলায় ছাগল চুরির অপবাদে দু’ভাইকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।
রোববার (১৫ মে) সকালে লোহাগড়া উপজেলার কোটাকোল ইউনিয়নের মাটিয়াডাঙ্গা গ্রামে এ নির্যাতনের ঘটনা ঘটে।
নির্যাতিত যুবকরা হলেন- মাটিয়াডাঙ্গা গ্রামের রশিদ শেখের ছেলে ফরিদ শেখ (৩০) ও একই গ্রামের রউফ শেখের ছেলে তরিক শেখ (২৩)। তারা সম্পর্কে পরস্পর চাচাতো ভাই। বর্তমানে তারা লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
প্রতক্ষ্যদর্শী ও আহতদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শনিবার (১৪মে) রাতে মাটিয়াডাঙ্গা গ্রামের হাই মুন্সির একটি ছাগল হারিয়ে যায়। ওই ছাগল চুরির অভিযোগে ফরিদ ও তরিককে রোববার (১৫ মে) সকাল ৮টার দিকে বাড়ি থেকে ধরে আনা হয়। পরে নান্নু শেখের দোকানের পাশে দুটি গাছে দুইজনকে আলাদাভাবে বেঁধে চালানো হয় নির্যাতন।
এ সময় কোটাকোল ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আবু কালাম মুন্সির নেতৃত্বে নান্নু শেখ, আজমল মুন্সি, ইজাজুল মুন্সি ও রমজান মুন্সিসহ ৪/৫ জন তাদের বাঁশের লাঠি ও মুগুর দিয়ে বেধড়ক পেটায়। এছাড়া বিড়ির আগুন দিয়ে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ছ্যাঁকা দেওয়া হয় বলেও আহতদের অভিযোগ।
প্রায় ঘণ্টা দুয়েক ধরে চলা ওই নির্যাতনের মধ্যে নান্নু মুন্সির বাড়ি থেকে খবর আসে ছাগল বাড়ি ফিরে এসেছে। তখন ফরিদ ও তরিককে ছেড়ে দিয়ে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়।
কোটাকোল ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আবু কালাম মুন্সি মারধরের কথা স্বীকার করে বলেন, ‘আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম, তবে আমি তাদের মারিনি। সন্দেহ থেকে তাদের মারা হয়েছে।
লোহাগড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ আবু হেনা মিলন মারধরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘আইন কেউ নিজের হাতে তুলে নিতে পারে না। তাদের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। অভিযোগ পেলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে’।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

আরো লেখাসমূহ

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় ইয়োলো হোস্ট