1. multicare.net@gmail.com : সময়ের পথ :
শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০৮:২১ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক গাফফার চৌধুরীর মৃত্যুতে ভোরের কাগজের প্রকাশক ও সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলায় আমেরিকান প্রেসক্লাব অব বাংলাদেশ অরিজিন-এর নিন্দা জীবন দিয়ে হলেও মদের আইন বাতিল সহ ১৫ দফা দাবি আদায় করবো লামায় সমাজের সর্দার নির্বাচিত হয়েছে ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি ইয়াছিন লক্ষ্মীপুরে অষ্টম শ্রেণির স্কুলছাত্রী অপহরণ, গ্রেপ্তার ১ রামগড়ে বিপজ্জনক মরাগাছ কেটে বিপাকে পাউবো কমর্চারি লক্ষ্মীপুরের ১৬০০ টন গম নিয়ে ডুবে গেল জাহাজ পুলিশের কব্জি বিচ্ছিন্নকারী নৃশংস কুখ্যাত সন্ত্রাসী আটক-র‍্যাব-৭। হরিণাকুণ্ডুতে সরককারী আবাসনে গোলোযোগ ৯ জন আহত হরিণাকুণ্ডুতে আবাসনের পুকুরে মাছ ধরাকে কেন্দ্রকরে ৯ জন আহত

শহরতলীর মেজরটিলার সোনিয়া নাসরিন দুই এএসআই ও পিতার বিরুদ্ধে অভিযোগ

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১২ এপ্রিল, ২০২২
  • ২৫ বার পড়া হয়েছে

শহরতলীর মেজরটিলার সোনিয়া নাসরিন দুই এএসআই ও পিতার বিরুদ্ধে অভিযোগ

সিলেট প্রতিনিধিঃ সিলেট শহরতলীর মেজরটিলার সোনিয়া নাসরিন চৌধুরী ইমা তাহার নিজ পিতা জহিরুল ইসলাম চৌধুরী (পাইলট গনি), শাহপরান থানার এএসআই জাহাঙ্গীর ও এএসআই মোঃ আনোয়ার নন জিআর শাহপরান রহঃ থানা এসএমপির বিরুদ্ধে পুলিশ কমিশনার এসএমপির নিকট গত ৫ এপ্রিল একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

জানাযায়,সিলেট শহরতলীর মেজরটিলা মোহাম্মপুর এলাকার ০১ বাসার বাসিন্দা সোনিয়া নাসরিন চৌধুরী ইমা তাহার পিতৃ পরিচয় ও তাহার পরিবারকে সৃকৃতি দিতে তাহার নিজ পিতা সাবেক সেনাবাহিনীর এম,ই,এস আই,জি,ই আর্মি(বেসামরিক) সিলেট জালালাবাদ ক্যান্টনমেন্ট এর ক্যাশিয়ার জহিরুল ইসলাম চৌধুরী (পাইলট গনির) বিরুদ্ধে শাহপরান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। যার ডায়েরি নং- ১০৫৫ তারিখঃ ১৯/০১/২০২২ ইংরেজি

উল্লেখ্য সোনিয়া নাসরিন চৌধুরী ইমার পিতা জহিরুল ইসলাম চৌধুরী (পাইলট গনি) নিজেকে সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা পরিচয়ে ১৯৮২ সালে মোছাঃ খাদিজা বেগমের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের পর থেকে তিনি নানান অজুহাতে খাদিজা বেগম কে বিভিন্ন জায়গায় বাসা ভাড়া দিয়ে রাখলে ও তাহার কোন আত্মীয় স্বজন এমন কি নিজ পরিবারে পরিচয় না দিয়ে সম্পর্ক গোপন রাখেন। এরমধ্যে খাদিজা বেগমের কোল জুড়ে সোনিয়া নাসরিন চৌধুরী ইমা ও খালেদ মোর্শেদ মুন্না নামক দুটি সন্তানের জন্ম হয়। এরপর তিনি দীর্ঘ ৪০ বছর সংসার করার পর ২০২১ সালের নভেম্বর মাস থেকে তিনি আর তাদের কোন খোঁজ খবর নেয় নি।

এব্যাপারে সোনিয়া নাসরিন জানান, জন্মের পর থেকে আমার ভাই খালেদ মোর্শেদ মুন্নাকে আমার বাবা অমানুষিক নির্যাতন করতো। বাবার নির্যাতনে আমার ভাই মানষিকভাবে বিকারগস্ত হয়ে কোথায় হারিয়ে যায়। আজও তার সন্ধান পাওয়া যায় নি। ছেলে হারানোর শোকে আর তিনির অমানুষিক নির্যাতনে অসুস্থ হয়ে জীবন যাপন করছেন। আমাদের মা-মেয়ের ভরনপোষণ ও নিচ্ছেন না। তাছাড়া আমি সাবালিকা হওয়া সত্ত্বেও আমার ব্যাপারে তাহার কোন চিন্তা ভাবনা ও নেই। আমাকে তিনি নানানভাবে মানষিক নির্যাতন করেছেন। আমি ও অসুস্থ হয়ে পড়ছি।

এছাড়া ও সোনিয়া নাসরিন আরো বলেন, অবশেষে আমি নিরুপায় হয়ে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ ট্রাষ্টের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন খান এর সহযোগিতায় শাহপরান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করি। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি যে আমার সাধারণ ডায়েরির তদন্তকারী কর্মকর্তা এএসআই জাহাঙ্গীর আমার বাবার সাথে আতাত করে আমাকে নানান অজুহাতে হয়রানি করছে। ঘটনাস্হল শাহপরান থানার আওতাধীন হওয়ার পর ও তিনি কোন পদক্ষেপ না নিয়ে আমাকে জৈন্তাপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি করতে বলেন।

পরবর্তীতে সিলেট জেলা জজকোর্ট থেকে নন জিআর এএসআই আনোয়ার আমাকে মুঠোফোনে বলেন, তোমার কোন চিন্তার কারণ নাই। জজ সাহেব তোমার পিতাকে ডাকবে। আমি তোমার পিতার সাথে যোগাযোগ করবো। এরপর ২/৩ পর আমাকে আবারো বলেন, জজ সাহেব তোমার পিতাকে ডাকবে না।কারন তোমার এই জিডি দিয়ে হবে না। আবার নতুন করে জিডি করতে হবে। পরে আমি জৈন্তাপুর থানায় যাই জৈন্তাপুর থানা ও একই সুরে কথা বলে আমাকে কোন সহযোগিতা করেনি। পরে শাহপরান থানার এএসআই জাহাঙ্গীর আমাকে চাপ প্রয়োগ করে আমার দায়েরকৃত সাধারণ ডায়েরি প্রত্যাহার করাতে বাধ্য করেন।

এব্যাপারে সোনিয়া নাসরিন আইন শৃঙ্খলা বাহিনী কতৃক ন্যায় বিচার না পেয়ে, আইন শৃঙ্খলা বাহিনী কতৃক নানানভাবে হয়রানির শিকার হয়ে ন্যায় বিচারের আশায় বিগত ৫ এপ্রিল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার এসএমপির নিকট তাহার পিতা ও শাহপরান থানার এএসআই জাহাঙ্গীর ও সিলেট জেলা জজকোর্টের নন জিআর এএসআই মোঃ আনোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন।

তিনি প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা সহ সংশ্লিষ্ট সকলের নিকট ন্যায় বিচার ও উল্লেখিত ঘটনার সঠিক তদন্তপুর্বক আইনগত পদক্ষেপ নিতে দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

আরো লেখাসমূহ

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় ইয়োলো হোস্ট