1. multicare.net@gmail.com : সময়ের পথ :
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:২৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস পালিত l বিভাগীয় প্রশাসন ও দুর্নীতি দমন কমিশন চট্টগ্রাম ১০ ই ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে শফিকুল ইসলাম পেলেন এফবিজেও এর সম্মাননা স্মারক গাজাসহ ২কারবারী আটক-র‌্যাব-৭,ফেনী ক্যাম্প। রামগড়ে হানাদার মুক্ত দিবস পালিত ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অশ্রসহ আটক ৪-সদরঘাট থানা নওগাঁর মান্দায় সপ্তম শ্রেণীর শিক্ষার্থী ফাইনাল পরিক্ষার ৩য়দিনে অপহরণ জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ আবৃত্তি প্রতিযোগীতায় প্রথম স্থান লাভ করেন জান্নাতুল মাওয়া। নওগাঁর মান্দায় ফকিন্নী নদী পুনঃখনন কাজের উদ্বোধন বগুড়া শান্তাহারে মানবিক সাহায্য সংস্থা নামের এনজিও কিস্তি না পেয়ে,মাথা ফাটিয়ে ক্যাসবক্স থেকে টাকা ছিনতাই

মা ফেরদৌসী আর মেয়ে তান্নির অত্যাচারে অতিষ্ঠ শহরবাসী

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: শনিবার, ২৫ জুন, ২০২২
  • ৭২ বার পড়া হয়েছে

মা ফেরদৌসী আর মেয়ে তান্নির অত্যাচারে অতিষ্ঠ শহরবাসী

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

নাম – মাসুদা মোস্তফা তান্নি পিতার নাম- মাসুক আহমদ মাতাঃ ফেরদৌসি বেগম।
বর্তমান ঠিকানাঃ অনামিকা আ/ এ, সাহেদ মিয়ার ৫ম তলায়, মিতালী, টিভিগেইট, সিলেট
মাসুদা মোস্তফা তান্নি এবং তাহার মা ফেরদৌসী বেগম আজ থেকে ১৫ বছর আগে স্বামীকে ডিভোর্স দেন তিনি। স্বামীকে ডিভোর্স দেওয়ার মূল কারন ছিল ফেরদৌসী আহমদ পরক্রীয়া করতেন এবং স্বামীর অনুপস্থিতিতে পর পুরুষ নিয়া খেলা করতেন। মাসুক আহমদ ঢাকা দক্ষিন বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজের মৌলানা স্যার থাকার সুবাধে বেশীরভাগ সময় স্কুলে কাটতো মাসুক আহমদের। স্কুলের এক শিক্ষকের সাথে কথা বললে নাম বলার শর্তে বলেন কি বলবো বাবা ঐ মহিলা কে বিয়ে করে মাসুক স্যারের জীবনটা শেষ, আর এখন তার আরেক মেয়ে মাসুদা মোস্তফা তান্নি যে মেয়েটি সে ঢাকা দক্ষিণ থাকতে ও অনেক বিচার আদালত আমরা করেছি এখন শুনেছি সে পালিয়ে বিয়ে করে আবার ডিভোর্স দিয়ে আরো তিন থেকে চারটি বিয়ে করেছে, তারা ও শান্তিতে নেই স্বামীরা। ঐ মেয়েটি তার মায়ের মতো হয়েছে। তিনি আরো বলেন আগে করেছি তার মায়ের বিচার পরবর্তীতে তার বিচার করতে করতে আমাদের খুব খারাপ লাগে এখন আর যাই না, আসলে এই পরিবারটা খুবই খারাপ। খবর নিয়ে জানা যায় তিন সন্তানের জননী ফেরদৌসী আহমদ, তিন মেয়ের মধ্যে দ্বিতীয় মেয়ে মাসুদা মোস্তফা তান্নি। বর্তমানে কামিল আহমদ বাড়ী গঙ্গারজলে তার সাথে ৫ম সংসার করতেছেন তান্নি। তার প্রথম স্বামী ঔষধ কোম্পানিতে চাকুরী করার সুবাধে বাহিরে থাকতেন বেশী সময় সেই সুবাধে সে পরক্রীয়ায় জড়িয়ে পড়ে বহু ছেলেদের সাথে। প্রথম স্বামী হাতে নাতে ধরে ফেললে এবং নিজের জীবন বাচাতে ভয়ে ৪ টি জি ডি এন্ট্রি করেন শাহপরান থানায়। প্রথম স্বামী নাম না বলার শর্তে কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, আমার একটা ছেলে যার বয়স ১০ বছর। সে তার মায়ের কুকর্মে কষ্ট পেয়ে এখন মাকে দেখলে ভয় পায়, তাই গত ৬ বছর আগে স্বামীকে ডিভোর্স দিলেও ছেলের রোজগার খাইতে মামলা দিয়ে ছেলেকে নিতে চান তান্নি। স্বামী ও নাছোড় বান্দা কোর্ট থেকে ছেলের সম্মতিতে বাবা ছেলের জিম্মায় চলে আসে। মাসুদা মোস্তফা তান্নি পূর্বে প্রথম স্বামীর বিরুদ্ধে ৬ টি মামলা করেন যার কেনটিই জিততে পারেন নি মাসুদা মোস্তফা তান্নি। ২০০৯ সালে নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা, যৌতুক মামলা, পারিবারিক আদালতের মামলা, ১০০ ধারায় ছেলে তায়েফ আহমদ কে নিজ জিম্মায় নেয়ার মামলা, সকল মামলার রায় চলে যায় প্রথম স্বামীর পক্ষে। শেষ পর্যন্ত যে মামলা করে যার স্বাক্ষী করা হয় ট্রাক ড্রাইভার ফারুক,কাইয়ুম,সহ এলাকার কিছু বখাটেদের যারা সবসময় তার আশ্রয় প্রশ্রয় দিয়ে থাকে। দ্বিতীয় বিয়ে হয় করিমউল্ল্যাহ মার্কেটের এক কর্মচারীর সাথে ৬ মাসের মাথায় তাকে ও ডিভোর্স দেয়া হয়, তৃতীয় বিয়ে করে কামিল নামের এক ছেলেকে যার একটি মেয়ে সন্তান আছে। সেই সন্তানটিকে কখনো কখনো অস্বীকার করে যার কাছে যায় তাহার সন্তান বলে চাপিয়ে দিতে চায়। পরবর্তীতে সিলেট শহরের বিভিন্ন এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে এখন পতিতা হিসাবে ব্যবসা চালিয়ে আসছে, তার খবর নিতে গিয়ে দেখা যায় শাহপরান এলাকার কিছু বখাটে মিলে মা আর মেয়েকে টাকার বিনিময়ে ব্যবহার করে আসছে আর যখন তার পূর্বের যে ছেলেটিকে পায় তাকে হেনস্থা করতে শাহপরান এলাকার কিছু যুবক তাকে আশ্রয় প্রশ্রয় দিয়ে আসছে, কিছুদিন আগে মাসুদা মোস্তফা তান্নিকে শাহপরান থানা থেকে বের করে দেওয়া হয়, তখনকার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ঐ মেয়েকে থানায় না আসতে নিষেধ করেন, কারন মামলাবাজ ঐ মেয়ের আসল রুপ চিন্তে পারেন ঐ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। বর্তমানে সে ওই শাহপরান উপশহর এলাকায় বিভিন্ন সময়ে ঐ বখাটেদের যোগসাজসে চুরি,ছিনতাই সহ বিভিন্ন অপকর্ম করে আসছে বলে অনেকে ধারনা করছেন। সামাজিক ভাবে হেয় প্রতিপন্ন হওয়ার ভয়ে অনেকে মুখ খুলছেন না, আবার ঐ এলাকার স্থানীয় একজন সামাজিক ব্যক্তিত্বসম্পন্ন ব্যক্তির বাসায় প্রায় সময় তিনি যাতায়াত করেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এক কর্মকর্তার দৃষ্টি গোচর হলে তিনি বিষয়টি নজরে আছে বলে জানান। পরবর্তী নিউজে তাহার আরও তথ্য নিয়ে আপনাদের সামনে নিউজ আসছে বলে জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

আরো লেখাসমূহ

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় ইয়োলো হোস্ট